মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

ভিশন ও মিশন

ভিশন-২০৪১

সেক্টর

ভিশন-২০৪১

কার্যক্রম

বর্তমান অবস্থা

কর্মপরিকল্পনা

মন্তব্য

স্বল্পমেয়াদী

(২০১৮-২০২১)

মধ্যমেয়াদী

(২০২২-২০৩০)

দীর্ঘমেয়াদী

(২০৩১-২০৪১)

বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিএমডিএ) গাইবান্ধা জেলা

আধুনিক, টেকসই ও নিরাপদ সেচ ব্যবস্থাপনা

১. সেচ কাজে ভূ-পরিস্থ পানির ব্যবহার বৃদ্ধি

 

 

 

 

 

   ক) নদী, খাল, পুকুর, বিল ইত্যাদি পুনঃ খনন

ভূ-পরিস্থ পানির সংরক্ষণ, ভূ-গর্ভস্থ পানির রিচার্জ বৃদ্ধি ও জলাবদ্ধতা নিরসণকল্পে জেলার খাস, মজা নদী, খাল, পুকুর, বিল ইত্যাদি পুনঃ খননের কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে।

4০%

65%

100%

300.00 কিঃ মিঃ সম্ভাব্য লক্ষ্যমাত্রা

    খ) সেচ কাজে বৃষ্টি ও ভূ-পরিস্থ পানির ব্যবহার বৃদ্ধি

পুনঃ খননকৃত খাল, পুকুর, বিলে সংরক্ষিত বৃষ্টির পানি ও নদীতে এলএলপি স্থাপনের মাধ্যমে সেচ কাজে ভূ-পরিস্থ পানির ব্যবহার বৃদ্ধি করা।

3০%

৫5%

100%

200 টি এলএলপি স্থাপনের সম্ভাব্য লক্ষ্যমাত্রা

2. সেচ কাজে পানি ব্যবহারের দক্ষতা বৃদ্ধি

 

 

 

 

 

    ক) ভূ-গর্ভস্থ সেচ নালা নির্মাণ

ভূমি ও পানির অপচয় রোধকল্পে অর্থাৎ সেচ দক্ষতা বৃদ্ধির নিমিত্তে প্রতিটি সেচ যন্ত্রে ভূ-গর্ভস্থ সেচ নালা নির্মাণ ও প্রযোজ্য ক্ষেত্রে ফিতা পাইপের ব্যবহার বৃদ্ধি করা। বর্তমানে 504 কিঃ মিঃ ভূ-গর্ভস্থ সেচ নালা নির্মাণ করা হয়েছে এবং 300 মিঃ ফিতা পাইপ ব্যবহার করা হচ্ছে।

3০%

55%

10০%

50 টি সেচ যন্ত্রে 50 কিঃমিঃ ভূ-গর্ভস্থ সেচ নালা নির্মাণের সম্ভাব্য লক্ষ্যমাত্রা

    খ) সেচ কাজে ফিতা পাইপের ব্যবহার

3০%

55%

10০%

5000 মিটার ফিতা পাইপ ব্যবহারের সম্ভাব্য লক্ষ্যমাত্রা

    গ) আধুনিক সেচ প্রযুক্তি ব্যবহার (স্প্রিংকলার, ড্রিপ ও

        ভ্যালি ইরিগেশন)

-

-

10%

30%

বৃষ্টির পানি সংরক্ষণ পূর্বক বর্নিত প্রযুক্তি ব্যবহার করে সবজি জাতীয় ফসলে সেচ প্রদান করা সম্ভব

    ঘ) স্মার্ট কার্ড বেইজম প্রি-পেইড মিটার ও টেলি মিটারিং  

        সিস্টেম চালু করণ

সেচ ব্যবস্থাপণা আধুনিকায়ন, স্বল্প খরচে সেচ গ্রহণ ও সর্বোপরি সেচের পানির অপচয় রোধকল্পে স্মার্ট কার্ড বেইজম প্রি-পেইড মিটার ও টেলি মিটারিং সিস্টেম চালু করণ। বর্তমানে 504 টি সেচ যন্ত্রে প্রি-পেইড মিটার ও 60 টি টেলি মিটার স্থাপন করা হয়েছে।

25%

50%

10০%

504 টি সেচ যন্ত্র

3. সেচ কাজে সৌর শক্তির ব্যবহার বৃদ্ধি

সেচ যন্ত্র পরিচালনার জন্য সৌরশক্তি চালিত পাম্প এর ব্যবহার বৃদ্ধি করা

20%

40%

80%

 

4. মাননীয় কৃষি মন্ত্রী মহোদয়ের উদ্ভাবন- সৌরশক্তি চালিত পাতকুয়া (Dugg Well) খনন

বরেন্দ্র এলাকায় ভূ-গর্ভস্থ ও ভূ-পরিস্থ পানির সমন্বিত  (Conjunctive) ব্যবহার ও ভূ-গর্ভস্থ পানির অতিমাত্রা ব্যবহার সীমিত করণে খরা সহষ্ণিু ও স্বল্প পানি গ্রাহী ফসলে সেচ প্রদানের নিমিত্তে সৌরশক্তি চালিত পাতকুয়া (Dugg Well) খনন করা।

40%

70%

100%

100 টি পাতকুয়া (Dugg Well) খননের সম্ভাব্য লক্ষ্যমাত্রা

 

চলমান পাতা

পাতা নং- 02

 

সেক্টর

ভিশন-২০৪১

কার্যক্রম

বর্তমান অবস্থা

কর্মপরিকল্পনা

মন্তব্য

স্বল্পমেয়াদী

(২০১৮-২০২১)

মধ্যমেয়াদী

(২০২২-২০৩০)

দীর্ঘমেয়াদী

(২০৩১-২০৪১)

বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিএমডিএ) গাইবান্ধা জেলা

আধুনিক, টেকসই ও নিরাপদ সেচ ব্যবস্থাপনা

5. জলাবদ্ধতা নিরসণ ও কৃষি জমি পুনুরুদ্ধার

গাইবান্ধা জেলায় বিল ও অনেক জলাবদ্ধ এলাকা রয়েছে। খাল-খাড়ী ভরাট হয়ে যাওয়ায় প্রাকৃতিক পানি নির্গমণ পথ সংকুচিত হয়েছে এবং বিভিন্ন জায়গায় অ-পরিকল্পিত ভাবে পুকুর খনন করায় কৃষি জমি জলাবদ্ধ জমিতে পরিণত হয়েছে। নিষ্কাশন নালার মাধ্যমে জলাবদ্ধ পানি নির্গমণের ব্যবস্থা করা হলে ঐসব এলাকা জলাবদ্ধতামুক্ত হয়ে কৃষি জমিতে রুপান্তরিত হবে।

2০%

45%

8০%

5000 হেক্টর সম্ভাব্য লক্ষ্যমাত্রা

6. উৎপাদিত কৃষিপণ্য পরিবহণ ও বাজারজাত করণের লক্ষ্যে যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন

কৃষকের উৎপাদিত কৃষিপণ্য পরিবহণ ও বাজারজাত করণের লক্ষ্যে গ্রামীণ সড়ক পাকা করণ।

 

 

 

 

    ক) গ্রামীণ সড়ক পাকা করণ

10%

২৫%

৫০%

 

    খ) পুনঃ খননকৃত খাল/নদীতে ফুট ওভার ব্রীজ নির্মাণ

৫%

৩০%

৫০%

 

7. রাবার ড্যাম নির্মাণ

নদীর পানি সেচ কাজে ব্যবহার ও মাছের অভয়াশ্রম সংরক্ষণের নিমিত্তে কালপানি নদীর কানাইখাল অংশে রাবার ড্যাম নির্মাণ

-

%

-

01 টি

8. বনায়ন

প্রাকৃতিক ভারসাম্য রক্ষার্থে পুনঃ খননকৃত নদী, খাল, পুকুর ও রাস্তা/বাঁধে বৃক্ষ রোপণ। বর্তমানে গাইবান্ধা জেলায় 1.50 লক্ষ বৃক্ষ রোপণ করা হয়েছে।

25%

৪০%

10০%

1.5 লক্ষ বনায়নের সম্ভাব্য লক্ষ্যমাত্রা

9. কৃষক প্রশিক্ষণ

আধুনিক ও প্রযুক্তি নির্ভর কৃষি সম্পর্কে কৃষক প্রশিক্ষণ প্রদান। বর্তমানে গাইবান্ধা জেলায় 300 জন কৃষককে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে।

১0%

45%

10০%

100 জন কৃষক প্রশিক্ষণের সম্ভাব্য লক্ষ্যমাত্রা

10. উন্নত জাতের বীজ উৎপাদন ও বিপণন

গাইবান্ধা জেলায় প্রতি বছর বোরো মৌসুমে প্রায় 10 মেঃ টন ও আমন মৌসুমে প্রায় 5 মেঃ টন  বীজ সরবরাহ করা হয়ে থাকে।

10%

৪০%

৮০%

 

১1. বিশুদ্ধ খাবার পানি সরবরাহ

স্থাপিত গভীর নলকূপ হতে গ্রামীণ জনপদে আর্সেনিকমুক্ত বিশুদ্ধ খাবার পানি সরবরাহ স্থাপনা নির্মাণ। বর্তমানে গাইবান্ধা জেলায় 5 টি স্থাপনার মাধ্যমে 5000 জন গ্রামীণ অধিবাসীকে বিশুদ্ধ খাবার পানি সরবরাহ করা হচ্ছে।

১5%

40%

৮০%

5 টি খাবার পানি সরবরাহ স্থাপনা নির্মাণের সম্ভাব্য লক্ষ্যমাত্রা

 

ছবি


সংযুক্তি


সংযুক্তি (একাধিক)



Share with :

Facebook Twitter